কুমিল্লার চান্দিনা বাজার ব্যাবসায়ীরা মানছে না লকডাউন নিয়ম!

প্রকাশিত: ১২:০৫ অপরাহ্ণ, জুন ১৬, ২০২০

বিকাল ৪ টার পর ঔষধ দোকান ব্যতিত অন্যান্য সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার সরকারি নিষেধাজ্ঞা থাকার পরেও কুমিল্লার চান্দিনা বাজারের অধিকাংশ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলা রাখা হচ্ছে, যেখানে এই নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছিল করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের জন্য।

করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব রোধে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পরিচালনার ক্ষেত্রে কিছুতেই বিধি নিষেধ মানছেন না তারা। এই পরিস্থিতি চলতে থাকায় গোপনে ভ্রাম্যমাণ আদালত বিকাল ৫ টা থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত বাজারের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে ৯১ হাজার ৫০০ টাকা জরিমানা আদায় করে।

ঔষধ দোকান ব্যতীত অন্যান্য ব্যবসা প্রতিষ্ঠান সরকারি বিধি উপেক্ষা করে খোলা রাখা সহ সামাজিক দূরত্বের কোনো তোয়াক্কা তো নেই-ই,বরং অধিকাংশ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ক্রেতারা গাদাগাদি করে তারা তাদের নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস কেনার জন্য জড়ো হচ্ছে।

এই সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গুলোতে ক্রেতা বিক্রেতাদের মুখে মাস্ক নেই এবং জীবাণুনাশক স্প্রে তো দূরের কথা, ক্রেতাদের হুমরি খেয়ে দোকানগুলোতে সমাগম বাড়লেও অধিক মুনাফালোভী মুনাফার আশায় কোনরকম নিষেধাজ্ঞা মানছেন না।

কুমিল্লার চান্দিনার এই পরিস্থিতিতেও কয়েকজন সৎ ব্যবসায়ী বিকেল চারটার পর সরকারি বিধি মোতাবেক দোকান বন্ধ করলেও অধিকাংশ ব্যবসায়ী সন্ধ্যার পর পর্যন্ত তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলা রেখে যাচ্ছে। কোন দোকানে সামাজিক দূরত্ব নেই।

এ ব্যাপারে ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার আশিস দাস জানান, কোনোভাবেই নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না মুনাফালোভী এইসব অসাধু ব্যবসায়ীদের। তারা বাজারে অভিযান চালিয়ে বিকেল চারটার পর ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলা রাখা, সামাজিক দূরত্ব বজায় না রাখা,নিয়ম না মানা, মুখে মাস্ক না পড়া ও নির্দিষ্ট স্থানে কাঁচা বাজার না বসার অপরাধে অনেক ব্যবসায়ীকে জরিমানা করা হয়েছে।

ভ্রাম্যমাণ আদালত এও জানান যে, আমাদের অভিযান অব্যাহত থাকবে। প্রয়োজনে আমরা আরও কঠোর ভূমিকা পালন করব, যাতে এমন দুঃসাহস করার কথা কল্পনাও করতে পারবে না।