হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী ; মোছাম্মৎ শফিকা আকতার ছিদ্দিকা

প্রকাশিত: ২:২৭ অপরাহ্ণ, আগস্ট ১৯, ২০২০

হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী
-মোছাম্মৎ শফিকা আকতার ছিদ্দিকা

সবাই মোরা বলি,
হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী,
বুঝতেন যেন
মানুষেরে ভালোবাসার অলিগলি।
মানুষের দুঃখ বেদনায়
নয়ন জল তাঁর উঠিত উতলি,
শাসনে ভাষনে হৃদয়ে যে নানা রঙের অঞ্জলি ।
ভয় না করে মরনের এগিয়ে যেতেন সাহস নিয়ে,
দেশের তরে জীবন বিলিয়ে দিতেন সদা নির্ভয়ে।
আছে আজো কালের সাক্ষী হয়ে
রেসকোর্স ময়দান,
আছো তুমি সবার মাঝে সৌরভে গৌরবে,
মৃত্যু শুধু বাড়য়েছে শারীরিক ব্যবধান।
তুমি আছো বাংলার মানুষের প্রতিটি অক্ষরে
আছো অব্দ অব্দ শব্দে প্রতিটি বাক্যে
কথা সদা বাজে তোমার
মিটিং,মিছিল, সভা সকল সেমিনারে।
সশরীরি উপস্থিতি নেই আজ জনতার মাঝে,
তবু তোমায় ধারণ করে মানুষ নব নব সাজে।
প্রায় সকল শব্দযন্ত্রে আসছে ভেসে অবাক ধবনি
“এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম”অমর বাণী।
হাওয়ায় হাওয়ায় নয়নে নয়নে
আসো তুমি ভেসে,
বাংলার মানুষ খুঁজে তোমায়
গভীর ভালোবাসার রেশে।

ছলছল চোখে বাঙ্গালী খুঁজে আজো তোমায়,
কোথায় গেলে কেমন করে কিসের তরে
মৃত্যু তোমার প্রতিটি মানুষেরে ভাবায়,
লোকে তোমায় আজো
নিত্য নতুন সাজে সাজায়।
তোমার স্বরচিত কবিতাখানি আবৃত্তি করছিলে
ধীর চিত্তে, অসীম সাহসে, ভালোবাসা ঢেলে।
কত মমতা জড়ানো ছিলো সেই আবেদন
ভুলে গিয়েছিলো
কৃষক, মুটে, মজুর সবাই নিজ ব্যবধান।
আমজনতা গ্রহণ করে তোমায়
আজো নিত্য নতুন ধ্যানে,
ছাত্র, শিক্ষক, সাংবাদিক
বারেবারে উজ্জীবিত একই গানে।
এত মাধুর্য তোমার গলে
বুঝলো সবে সেই আয়োজনে,
শিখিয়েছো জীবন তুচ্ছ
দেশের ভালোবাসার প্রয়োজনে।
ফাগুনের ফুলে আর আগুন জ্বলেনা যেন
তুমি ছাড়া,
কবি ছবি আঁকে, জীবনের নতুন বাঁকে
তুমিহীনা সেই ছবি বেদনায় একাকার স্বপ্নহারা।
আঁখির তারায় তারায় লিখা আজো তোমার ছবি
আসবে আবার ধীরে, গাইবে নব স্বরে তুমি কবি।
বাংলার হাওয়ায় ভেসে বেড়ায় তোমার কবিতা,
উত্তর থেকে দক্ষিণে পূর্ব থেকে পশ্চিমে
সকল দিকের মানুষের জন্য তোমার মমতা।
তোমার অঝর কবিতা ঝরঝর ঝরে চারিধারে,
শত বছর পরে ও তোমা তরে জনতা মরে অনাহুত হাহাকারে।
জাগরণের বাণীতে ভেঙ্গেছিলে জেগে থাকা মানুষের ঘুম,
কাঁথা, কম্বল ছেঁড়ে আহবানে ছেঁড়েছিল মানুষ ভালোবাসার ওঁম।
মানুষ বারেবারে হয়ে যায় যখন স্বপ্নহারা
তোমার দেখানো স্বপ্নে তারা হয়েছে আত্মহারা।
তোমার আগমনে সেদিন ময়দানে নেমেছিলো
স্বাধীনতাকামী সাধারণ মানুষের ঢল,
জাগরণ বাণী শুনিয়ে বাড়িয়েছিলে
উঁচুনিচু সব মানুষের মনোবল।
সবার অভেদ চিন্তায় সুধা ঢাললো অমর বাণী,
জনতার মঞ্চে তোমার পদার্পণ-
অসহায় মানুষের মন কেবল ডেকেছে তোমায়
ভুলে সকল মান অভিমান।
তৃপ্ত হয়েছিলো সেদিন লাখো বাঙ্গালির
অতৃপ্ত আত্মা
বিচলিত হয়েছিলো
স্তব্ধ হয়েছিলো পশ্চিমা শাসক গোষ্ঠী,
তোমার প্রেরণায় ছিলনা কেউ ঘরের মাঝে,
অস্ত্র ধরেছিলো বীর বাঙ্গালী নব নব সাজে।
এলো লাল সবুজের পতাকা
উড়লো মাতাল সমীরণে,
দেশ হলো সত্যিকারের স্বাধীন,
আঁধার শেষে আসলো নতুন আলোর বীণ।