বিশ্ব অর্থনীতির দুয়ার খুলছে, বাংলাদেশ ঘুরে দাঁড়াবে

প্রকাশিত: ১:৫০ অপরাহ্ণ, জুন ১৮, ২০২০

নিউজ ডেস্ক: করোনাভাইরাসের নেতিবাচক প্রভাব মোকাবেলা করে বিশ্ব অর্থনীতির দুয়ার খুলতে শুরু করেছে। বিভিন্ন দেশ থেকে বাংলাদেশে রফতানির আদেশ আসতে শুরু করেছে। দেশের ভেতরেও অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড পর্যায়ক্রমে স্বাভাবিক হওয়ার দিকে এগোচ্ছে। শিগগিরই বাংলাদেশ ঘুরে দাঁড়াবে।

২০২০-২১ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট বিষয়ে এক অনলাইন আলোচনায় অংশ নিয়ে তিন মন্ত্রী এমন আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন। তারা বলেন, জীবন-জীবিকার স্বার্থে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড শিগগিরই স্বাভাবিক ধারায় ফিরে আসবে।

করোনা মহামারী ও পরবর্তী বাংলাদেশ নিয়ে ‘বিয়ন্ড দ্য প্যানডেমিক’ শীর্ষক অনলাইন আলোচনায় যোগ দিয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান, বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি ও বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ এমন আশাবাদ ব্যক্ত করেন। তারা বলেন, আগামী বাজেটে উচ্চ প্রবৃদ্ধির হার নিয়ে অনেকে সমালোচনা করলেও বাস্তব কারণেই সরকার উচ্চ প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে। অর্থনীতিকে গতিশীল করতে এটি কাজে আসবে।

প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী শাহ আলী ফরহাদের সঞ্চালনায় মঙ্গলবার রাতে অনলাইনে সম্প্রচারিত এ আলোচনার বিষয় ছিল ‘বাজেট ২০২০-২০২১ : জীবন ও জীবিকায় অগ্রাধিকার’। এতে আরও অংশ নেন ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন বাংলাদেশ শিল্প ও বণিক সমিতির ফেডারেশন (এফবিসিসিআই) সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম, বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (বিআইডিএস) সিনিয়র রিসার্চ ফেলো ড. নাজনীন আহমেদ।

পরিকল্পনামন্ত্রী মান্নান বলেছেন, করোনা মহামারীর প্রভাব সব সময় থাকবে না। আর নেতিবাচক অবস্থা মোকাবেলা করে দেশের অর্থনীতি আগেও এগিয়ে গেছে। এবারও এগোবে। এছাড়া মহামারীর মধ্যেও রেকর্ড পরিমাণে রেমিটেন্স এসেছে। কৃষিতে বাম্পার ফলন হয়েছে। বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ এখন সর্বোচ্চ পর্যায়ে রয়েছে। এসব কারণে অর্থনীতি শিগগিরই আগের অবস্থায় ফিরে আসবে বলে আশা করা যায়।

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, ইউরোপের দেশগুলোর বাজার খুলতে শুরু করেছে। দেশে রফতানির আদেশ আসতে শুরু করেছে। বিদেশে শ্রমিক রফতানির সুযোগও তৈরি হচ্ছে। এসব কারণে সামনের দিনগুলোতে বাংলাদেশের রফতানি যেমন বাড়বে, তেমনি বাণিজ্যও বেড়ে যাবে। বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেন, ব্যবসা-বাণিজ্য বাড়াতে আমরা নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ ও গ্যাস দেয়ার উদ্যোগ নিয়েছি। এগুলোর নিশ্চয়তা দেয়া গেলে দেশে বিদেশি বিনিয়োগ আসবে। বিনিয়োগ বাড়লে দেশের অর্থনীতি এগোবে।

বিআইডিএসের সিনিয়র রিসার্চ ফেলো ড. নাজনীন আহমেদ বলেন, বাজেটে জীবন-জীবিকার ধারা ধরে রাখতে বেশ কিছু পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। এগুলোর সফল বাস্তবায়ন হলে এর সুফল দরিদ্র মানুষ পাবে। কিন্তু বাজেটের বড় অংশই বাস্তবায়ন হয় না। এজন্য ঘোষিত বাজেট বাস্তবায়নের ওপর সরকারকে বিশেষ নজর দিতে হবে।