ঈদগাঁওতে সড়ক-উপসড়কে গর্ত : চলাচলের অনুপযোগী

প্রকাশিত: ১১:০৯ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২০

এম আবু হেনা সাগর, ঈদগাঁওঃ

কক্সবাজার সদরের ঈদগাঁওতে সড়ক-উপসড়কে ছোট বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। যেকোন মুর্হুতে দূর্ঘটনার আশংকা প্রকাশ করেছেন পথ চারীসহ যানবাহন চালকরা। দ্রত সংস্কারের দাবী সচেতন মহলের। যার কারনে জনদূর্ভোগ চরম আকারে ধারণ করে। নানা ঝুঁকি নিয়ে চলছে যানবাহন। দ্রুতগতিতে আসা গাড়ী চালকরায় সহজেই গতি নিয়ন্ত্রন রাখতে পারছেন না কোনভাবে। সড়কে চলাচল অনেকটা অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, সড়কের ঈদগাঁও স্টেশন, কালিরছড়া ট্রান্সপোর্ট পয়েন্টে ছোট-বড় অসংখ্য গর্তের সৃষ্টি হয়। দুরপাল্লাসহ ছোট ছোট যানবাহন চলছে ঝুঁকির মুখে। কেননা, বৃষ্টির পানিতে পরি পূর্ণ হয়ে গর্তগুলো দেখা যাচ্ছেনা। চালকরা গাড়ী চালাতে গিয়ে এসব গর্তে পড়ে দূর্ঘটনায় আশংকায় রয়েছেন। গর্তে পড়ে যানবাহন ইঞ্জিলসহ হরেক রকমের যন্ত্রপাতি বিকল হয়ে যাচ্ছে। জমে থাকা কাঁদাযুক্ত পানির ছিঁটকায় সড়কের পাশ দিয়ে চলাচলরত পথচারী দের কাপড় নষ্ট হচ্ছে প্রায়শ। পাশাপাশি বর্তমানে প্রধান সড়কের কটি স্থানে গর্তের ফলে অধিকাংশ গাড়ী চালক যানবাহন নিয়ন্ত্রন রাখতে গতিকমাতে বাধ্য হচ্ছে। বিগত ২/১মাস পূর্বে নির্মিত মেহেরঘোনা হয়ে মাইজ পাড়া ও বংকিম বাজার সড়কটির নানা স্থানে খানা-খন্দক সৃষ্টি হয়েছে। জন ও যান বাহন চলাচলে কষ্ট পাচ্ছে। ঈদগাঁও-চৌফলদন্ডী সড়কের বংকিম বাজার, মাইজপাড়াসহ বিভিন্ন ছোট বড় গর্তে সয়লাভ হয়ে পড়েছে। দেখার যেন কেউ নেই। ঈদগাঁও-ইসলামাবাদ সড়কের বেহাল দশার দূর্ভোগ চরম আকার ধারন করছে। পথচারীদের পোহাতে হচ্ছে ভোগান্তি। নেই সংস্কারের উদ্যোগ। খানা-খন্দক সৃষ্টি হওয়ায় যানবাহন চলাচলে কষ্ট পাচ্ছে। ঈদগাঁও থেকে ইসলামাবাদ সড়কের শুরু থেকে নানা অংশ সংস্কার না করায় ছোটবড় গর্তসহ খানা-খন্দকে সৃষ্টি হয়। সড়ক দিয়ে ইসলামাবাদ-পোকখালী দুই ইউনিয়নের প্রায় ১০/১৫ হাজার মানুষ প্রতিনিয়ত চলাচল করে থাকে। ইসলামাবাদ বাঁশঘাটা ও পাহাঁশিয়া খালী বাজারসহ নানা স্থানে গর্তের সৃষ্টি হয়। হাটবাজারে পণ্য বহনে যেমন অসুবিধা হচ্ছে, তেমনি রোগী নিয়েও ভোগান্তিতে পড়ে লোক জন। দোকানদার আমির হামজা, চালক আবদুল্লাহসহ সচেতন লোকজন জানান, উক্ত সড়কটিতে সংস্কারের অভাবে বেহাল দশায় পরিণত হয়। অসংখ্য লোকজনসহ যান চলাচলের সড়কটি সংস্কার একান্ত জরুরী।

ইসলামাবাদ ইউপি চেয়ারম্যান নুর ছিদ্দিক জানান, রাস্তা নির্মানের বছর পার হতে না হতেই ফের চলাচল অনুপযোগী সড়কটি। দ্রুত সংস্কার পূর্বক যাতায়াতের সু-ব্যবস্থা করা হউক।

পথচারীরা জানান, মহাসড়কের বিভিন্ন পয়েন্টে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ভাঙ্গা গর্তে ইট দিয়ে ভরাট করে দেয়ার কদিন পার হতে না হতেই ফের গর্তের সৃষ্টি। দূর্ভোগ-ভোগান্তিতে পড়েছেন নানান শ্রেনী পেশার লোকজন। মাহিন্দ্রা চালক আমিন ও রমিজ জানান,সড়কের যানবাহন চালাতে গিয়ে নিদারুন কষ্ট পাচ্ছে চালকরা। দূর্ভোগ কমানোর ক্ষেত্রে গর্ত সমুহ দ্রুত সংস্কার করা হউক।