আরও ৩ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা দিল সরকার

প্রকাশিত: ১২:৫২ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ২৫, ২০২০

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

করোনা সংকট থেকে দেশের শিল্প খাতের সুরক্ষায় আরও ৩ হাজার কোটি টাকা প্রণোদনা সুবিধা দিচ্ছে সরকার। সচল রপ্তানিমুখী শিল্প প্রতিষ্ঠানে কর্মরত শ্রমিক-কর্মচারীদের জুলাই মাসের বেতন-ভাতা হিসেবে ‘শেষবারের মতো’ এই প্রণোদনা সুবিধা দেওয়া হচ্ছে। প্রণোদনা বাড়ানোর সরকারের এই সিদ্ধান্ত বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে তফসিলি ব্যাংকগুলোর এমডি ও সিইও-কে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ‘শেষবারের মতো’ শব্দবন্ধ দিয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংক মূলত স্পষ্ট করে দিয়েছে এরপর বেতন-ভাতা বাবদ সরকার আর কোনো প্রণোদনা সুবিধা দেবে না। এ ছাড়া এর আগে ৫ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা সুবিধা ২ শতাংশ সুদে দেওয়া হলেও এবারের প্রণোদনা সুবিধার সুদ হার হবে ৯ শতাংশ, যার অর্ধেক সাড়ে ৪ শতাংশ সরকার ভর্তুকি দেবে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বিআরপিডি শাখার মহাব্যবস্থাপক মো. নজরুল ইসলাম এই চিঠি ইস্যু করেন। চিঠিতে বলা হয়, যে সব শিল্প প্রতিষ্ঠান তাদের শ্রমিক কর্মচারীদের জুন মাসের বেতন-ভাতা পরিশোধের লক্ষ্যে ঋণ ও বিনিয়োগ সুবিধা পেয়েছে কেবলমাত্র তারাই এই প্রণোদনার জন্য আবেদন করতে পারবেন। কোনো শিল্প প্রতিষ্ঠানের অনুকূলে জুন মাসের তুলনায় জুলাই মাসে এ খাতে ঋণ বিনিয়োগ বেশি হতে পারবে না বলেও চিঠিতে উল্লেখ করা হয়। সূত্রগুলো জানায়, বেতন-ভাতার জন্য এই প্রণোদনা সুবিধা দেওয়া হলেও অতিরিক্ত এই প্রণোদনার অর্থ ক্ষতিগ্রস্ত শিল্প ও সেবা খাতের ওয়ার্কিং ক্যাপিটাল হিসেবে এর আগে যে ৩০ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা সুবিধা দেওয়া হয়েছিল, তার সঙ্গে যোগ করা হবে। ফলে এই খাতে মোট প্রণোদনার পরিমাণ দাঁড়াচ্ছে ৩৩ হাজার কোটি টাকা। আর এই ৩ হাজার কোটি টাকার সুদের হারও ওই শিল্প খাতের মূলধনের বিপরীতে দেওয়া প্রণোদনা সুবিধার সুদের হারের সমপরিমাণ অর্থাৎ ৯ শতাংশ ধার্য হবে।

কভিড-১৯-এর প্রাদুর্ভাব বেড়ে যাওয়ায় সারা দেশে লকডাউন ঘোষণার পর সরকার রপ্তানিমুখী শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলোর শ্রমিক-কর্মচারীদের দুই মাসের (এপ্রিল-মে) বেতন-ভাতা দিতে ৫ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা ঘোষণা করেছিল। তবে দেশের গার্মেন্ট শিল্পের উদ্যোক্তাদের সংগঠনগুলো সরকারের ওই প্রণোদনা সুবিধা আরও বাড়ানোর দাবি জানান।

এ পরিপ্রেক্ষিতে সরকার ৩০ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা সুবিধা থেকে প্রায় আড়াই হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ দেয় জুন মাসের বেতন-ভাতা পরিশোধ করতে। সবশেষ গত সপ্তাহে বিজিএমইএর প্রেসিডেন্ট ড. রুবানা হক রপ্তানি লক্ষ্যমাত্রা ঘোষণা উপলক্ষে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সংবাদ সম্মেলনে বেতন-ভাতা বাবদ প্রণোদনা সুবিধা আরও অন্তত দুই থেকে তিন মাস বাড়ানোর জন্য সরকারের প্রতি অনুরোধ জানান।