আগামী সপ্তাহে হতে পারে আসিফ আকবর ও শফিক তুহিনের মামলার সমাধান

আগামী সপ্তাহে হতে পারে আসিফ আকবর ও শফিক তুহিনের মামলার সমাধান

প্রকাশিত: ১১:৩৬ পূর্বাহ্ণ, জুন ১৩, ২০২০

মোঃ আমানউল্লাহ

কুমিল্লা ( মুরাদনগর) প্রতিনিধি : আসিফ আকবর ও সফিক তুহিনের কপিরাইট আইনের মামলার সমাধান হতে পারে আগামী সপ্তাহে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ কপিরাইট অফিসের এক কর্মকর্তা। ২০১৮ সালের ৪ জুন সন্ধ্যায় গীতিকার-কণ্ঠশিল্পী শফিক তেজগাঁও থানায় জনপ্রিয় গায়ক আসিফ আকবরের বিরুদ্ধে মামলা করেন। ওই মামলায় কারাগারেও যেতে হয় গায়ক আসিফ আকবরকে।

আসিফের বিরুদ্ধে অন্যের গান ডিজিটালে রূপান্তর করে প্রতারণার মাধ্যমে বিপুল অর্থ উপার্জন করার অভিযোগ আনেন শফিক তুহিন। বাংলাদেশ কপিরাইট অফিসে বিষয়টি নিয়ে পর্যবেক্ষণ করছেন কর্মকর্তারা। তাদের সাথে যোগাযোগ করা হলে আগামী সপ্তাহের মধ্যে তারা একটি সিদ্ধান্তে আসতে পারবেন বলে জানিয়েছেন।

কপিরাইট অফিসের রেজিস্ট্রার জাফর রাজা চৌধুরী বলেন, শফিক তুহিন যদি গানটির গীতিকার হন তাহলে গানটি রচনা করার জন্য গীতিকবিতা হিসেবে কপিরাইট পাবেন। গান হিসেবে কিন্তু কপিরাইট পাবেন না। যখন গানটাকে স্বরলিপি দিয়ে মিউজিক অর্কেস্ট্রা দিয়ে সুর দিয়ে কম্পোজ করা হলো তখন এটি সঙ্গীতে পরিণত হলো। এই গানটার তখন মালিক হবেন মিউজিক কম্পোজার বা সুরকার। গীতিকার শুধু তার অংশের রাইট পাবেন। সেই হিসেবে গানের গীত রচনা করেছিলেন শফিক তুহিন। একটি গান গীতিকবিতা থেকে যখন সঙ্গীতে রূপান্তর করে কম্পোজ, সুর করে এবং কাউকে দিয়ে গাওয়ানো হয়, তখন গানটির মালিক হলেন সুরকার। গীতিকার শুধু তার অংশের মোরাল রাইটটুকু পাবেন।

শফিক তুহিন আমাদের কাছে গানের গীতিকার হিসেবে আবেদন করেছেন। বিষয়টি নিয়ে কপিরাইট অফিসে একটি শুনানি হয়েছিল। সেখানে আসিফ আকবরও উপস্থিত ছিলেন। তিনি বলেন, শফিক তুহিন গানের গীতিকার তা আমি অস্বীকার করি না। কিন্তু সমস্যা হয়েছিল তিনি এই গানটি নিয়ে এখানে একটি স্টেটমেন্ট দিয়েছেন। আমাদের কাছে একটি অঙ্গীকার নামা দিতে হয় এই গানটি নিয়ে কারও সাথে কোনো দ্বন্দ্ব নেই, আদালতে কোনো মামলা নেই। শফিক তুহিন এই স্টেটমেন্ট দিয়েছেন।

এদিকে আসিফ আকবর বলেছেন, এই গানগুলো নিয়েই তো মামলা। এই গানের মামলা নিয়ে আমি জেল খেটেছি। মামলা নেই এটা শফিক তুহিন মিথ্যা স্টেটমেন্ট দিয়েছেন। তাহলে এইটা কিভাবে হবে? শফিক তুহিন আমাদের বলেছেন, তার সঙ্গে আমার মামলাটি ফৌজদারি মামলা। এই গানগুলো নিয়ে মামলা করিনি। বিষয়টি আমি এখন যাচাই-বাছাই করছি। বেশকিছু ডকুমেন্টও আমার কাছে জমা দেয়া হয়েছে। আশা করছি আগামী সপ্তাহের মধ্যে আপনাদের সামনে বিষয়টি তুলে ধরতে পারবো।