ইসলামাবাদ দারুসসালাম একাডেমীতে বৃত্তির অর্থ হস্তান্তর অনুষ্ঠান সম্পন্ন

এইচ এম তৈয়ব জালাল:

কক্সবাজার সদরের অন্যতম শিশুবান্ধব বিদ্যাপীঠ ইসলামাবাদ ইউনিয়নের দারুসসালাম একাডেমীতে বৃত্তির অর্থ হস্তান্তর অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়।

আজ (১২) জুলাই দুপুর বারটার দিকে একাডেমীর হলরুমে প্রধানশিক্ষক হাফেজ নূরুল আলমের সভাপতিত্বে ও শিক্ষা পরিচালক সাংবাদিক এইচ এম তৈয়ব জালালের সঞ্চালিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- কক্সবাজার সদর উপজেলা শিক্ষা অফিসের সহকারী শিক্ষা অফিসার মোহাম্মদ এমদাদুল হক।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- কক্সবাজার সদরের স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি শিক্ষক সমিতির প্রভাবশালী সদস্য মৌলানা আব্দুল হাকিম।

অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- পরিচালনা কমিটির সদস্য জাফর আলম, জালাল আহমদ, আলকাজসহ সাড়ে পাঁচ শতাধিক ছাত্র-ছাত্রী ও তাদের অভিভাবকসহ বিভিন্ন পেশার লোকজন।

শিক্ষকদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- হাফেজ নূরুল হুদা, হাফেজ আহমদ জুনাঈদ, মনির আহমদ, রিদুয়ান সিফাত, হাফেজ নাঈম, উম্মে সালমা, তাসলিমা আক্তার, হাফেজ হাসান ও মোহছেনা আক্তার।

প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার সরকার শিক্ষা খাতে ব্যাপক কাজ করে যাচ্ছে। বছরের শুরুতে প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কোমলমতি শিশুদের মাঝে বই পৌঁছে দিয়ে অনন্য নজির স্থাপন করে যাচ্ছেন। অজপাড়া গাঁসহ দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে শিক্ষার আলো তাঁরই অবদান। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ১০০% শিক্ষিত জাতি গঠনের টার্গেট পূরণে আপনাদের দারুসসালাম একাডেমী অনন্য অবদান রেখে যাচ্ছে, যা অবর্ণনীয়। ভবিষ্যতে আরও ভাল রেজাল্ট করে শুধু কক্সবাজার নয়, পুরো দেশের প্রথম সারির বিদ্যাপীঠে পা রাখতে সক্ষম হবে বলে আশাবাদী।

তিনি ছাত্র-ছাত্রীদের উদ্দেশ্য করে বলেন, তোমাদের প্রতিষ্ঠানের মত মনোরম পরিবেশে প্রতিষ্ঠিত বিদ্যাপীঠ দেশে খুবই কম। যেমন পড়া লেখা তেমন ছাত্র-ছাত্রীদের উপস্থিতি। যেমন পরিবেশ তেমন অবকাঠামো। এরপরও যদি তোমরা পড়া লেখায় গাফিলতি কর, তবে ভবিষ্যত প্রজন্মের কাছে কি জবাব দেবে! সর্বোপরি পরকালে তোমাদের অবস্থা কি হবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে মৌলানা আব্দুল হাকিম বলেন, দারুসসালাম একাডেমী একসময় পুরো জেলাতেই শিক্ষর আলো বিস্তার করবে। অভিভাবকদেরকে অবশ্যই প্রতিষ্ঠানের পাশে থাকতে হবে। প্রতিষ্ঠানের ডাকে সাড়া দিতে হবে। সুখে দুঃখে সর্বদা প্রতিষ্ঠানের কল্যাণে সচেষ্ট থাকতে হবে। তবে আল্লাহ্‌র দেওয়া নেয়ামতের কৃতজ্ঞতা আদায় হবে। কারণ দারুসসালাম একাডেমী আপনাদের জন্য, আপনাদের এলাকার জন্য বিশেষ নেয়ামত। তাই নেয়ামতের কদর করতে হবে।

পরে ২০১৭শিক্ষা বর্ষে ইবতেদায়ী সমাপণী পরীক্ষায় সরকারি বৃত্তি প্রাপ্ত ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে অর্থ হস্তান্তর করে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘটে।



লেখাটি পঠিত হয়েছে 393 বার।